অনলাইন ভিত্তিক ই-কমার্স ব্যবসায়িক আইডিয়া

Online ecommerce business idea

আপনি অনলাইন ভিত্তিক ই-কমার্স ব্যবসার আইডিয়া খুঁজে থাকলে, এই লেখাটি আপনার জন্য। এখানে কিছু আইডিয়া শেয়ার করা হবে এবং আইডিয়া নিয়ে কিভাবে কাজ করবেন তা নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

আমাদের দেওয়া আইডিয়া গুলো নিয়ে কাজ করলে, আপনার সফল হওয়া সম্ভবনা থাকবে ১০০%। তাহলে চলুন শুরু করা যাক…..

নিচের দেওয়া ইমেজটা লক্ষ করুন, গত কয়েক বছরে অনলাইন ব্যবসার সম্প্রসারন কত টা ঘটেছে তা দেখলেই বুঝতে পারবেন।

ecommerce business growing

উপরের উল্লেখ করার ব্যবসায়িক গ্রথ দেখেই বুঝতে পারছেন। আজ থেকে ৫ হতে ১০ বছর পরে ই-কমার্স ব্যবসার পরিধি কতটা বৃদ্ধি পাবে। চলুন মূল আলোচনায় ফিরে যাওয়া যাক…………

আমি যে সকল ব্যবসার আলোচনা করব তা শুধু বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট বিবেচনা করে।

১. মাটির তৈরি পণ্য বিক্রয়

Mud Product

যদিও আপনার কাছে বিষয়টা এড়িয়ে যাওয়ার মত, কিন্তু এর একটি ভবিষৎ সম্ভবনা রয়েছে। বিভিন্ন ধরনের মিডিয়া নিউজের মাধ্যমে একটি নিউজ প্রায় পাওয়া যাচ্ছে যে, ক্যামিক্যালের হাড়ি পাতিলে রান্না করার ফলে মানুষ বিভিন্ন ধরনের রোগে আক্রান্ত হচ্ছে।

এখন আপনি চিন্তা করুন, এই অবস্থা যখন ৩০% থেকে ৫০% কাছাকাছি যাবে তখন মানুষ রান্না করার জন্য মাটির তৈরি হাড়ি পাতিল খুঁজবে। সুতরাং আপনি যদি এখন থেকে একটি ecommerce Business তৈরি করেন, যার মাধ্যমে বিভিন্ন ধরনের মাটির তৈরি পণ্য বিক্রয় করবেন। তাহলে দিন দিন এর জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাবে এবং একটা সময় গিয়ে ভালো ব্যবসা করে পারবেন।

ফেসবুক বিজ্ঞাপন কপিরাইট অনলাইন কাজ

২. স্থানীয় উদ্যোক্তার পণ্য বিক্রয়

support local business

আপনার এলাকায় দেখবেন অনেক মানুষ সুন্দর সুন্দর বিভিন্ন ধরনের পণ্য তৈরি করতে পারে। আপনি চাইলে সেই সব পণ্যের জন্য একটি লোকাল স্টোর তৈরি করতে পারেন।

একটা উদাহরন দেওয়া যাক, ধরুন আপনার এলাকায় খুব সুন্দর নকশি কাঁথা তৈরি হয়। এখন আপনি সেই নকশি কাঁথা ই-কমার্স স্টোরের মাধ্যমে বিক্রয় করলে যেমন আপনার ব্যবসার প্রসার হবে। সাথে সাথে সেই লোকাল সেলারের কিছু অর্থ আয় হবে।

আমি ব্যক্তিগত ভাবে মনে করি, এই ব্যবসায়িক কৌশলটি গ্রামো অর্থনৈতিক বাজারে অমূল্য পরির্বতন আসবে।

বায়োডাটা তৈরি করার অনলাইন কাজ

৩. লোকাল B2B ব্যবসা

b2b ecommerce business

আপনার এলাকায় ছোট আকারে কোন ব্যবসা প্রতিষ্টান থাকলে তার সেই পণ্য সমস্ত বাংলাদেশে পৌচ্ছে দেওয়ার কাজটি আপনি করতে পারেন।

লোকাল ব্যবসায়িদের পণ্য পাইকারি দরে বাজারে বিক্রয় করতে পারেন আপনার ওয়েবসােইটের মাধ্যমে।

ধরুন, আপনার লোকাল বাজারে হালকা মেশিনারি পণ্য উৎপন্ন হয়। এখন সেই পণ্য আপনার ওয়েবসাইটের মাধ্যমে পাইকারি বাজারে বিক্রয় করতে পারেন।

৪. বুটিক বিজনেজ

Local Boutique House

বর্তমানে প্রতিটি জেলায় জেলায় ছোট ছোট বুটিক হাউজ তৈরি হচ্ছে। কিন্তু সমস্যা হচ্ছে সেই বুটিক হাউজ গুলোর বিক্রয় নেই বললেই চলে। সুতরাং আপনি এমন একটি ওয়েবসাইট তৈরি করুন যার মাধ্যমে বুটিক হাউজের পণ্য গুলো বিক্রয় করতে পারেন।

লোকাল বুটিক হাউজ গুলোর ব্যবসা পরিধি রাড়ানো জন্য এটা খুবেই জরুরি। সেক্ষেত্রে আপনি যদি তাদের মাধ্যম হতে পারেন তাহলে সমস্যা কোথায়।

আপনি চাইলে ছোট করে এই ব্যবসা শুরু করতে পারেন। খুব বেশি ইনভেস্টের দরকার হতে না।

বিভিন্ন ধরনের অনলাইন ভিত্তিক কিছু ব্যবসায়িক আইডিয়া

৫. হাতে তৈরি অলঙ্কারের ব্যবসা

handmade jewellery product

অনেকেই হাতে তৈরি বিভিন্ন ধরনের অলঙ্কার তৈরি করে। যেমন, কানের দুল, বালা, শাখা, গলার হার ইত্যাদি। এবং বর্তমান বাজারে এই সকল অলঙ্কারের বাজার চাহিদা প্রচুর।

আপনারা লক্ষ করে দেখবেন যে, ঈদ, পূজা অথবা বিশেষ দিনে মেয়েরা অলঙ্কার পড়ে। একটি ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এই সকল পণ্য বিক্রয় করতে পারেন।

অনলাইন আয়ের সহজ এবং কঠিন উপায়

কিভাবে অনলাইনে ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করবেন

অনলাইন ই-কমার্স ব্যবসা শুরু করার জন্য প্রথমে আপনাকে একটি ডোমেইন এবং হোস্টিং ক্রয় করতে হবে।

তবে ডোমেইন নাম ক্রয় করার আগে চেষ্টা করবেন একটি ব্রান্ড নাম নির্বাচন করার। কারন একটি ব্রান্ডেড নাম, ওয়েবসাইটের মার্কেটিং করার ক্ষেত্রে সহযোগিতা করে।

আপনি চাইলে বিভিন্ন ধরনের নামের সাজেশন নিতে পারবেন বিভিন্ন ধরনের ওয়েবসাইট থেকে। নামের সাজেশন নিতে পারেন এই ওয়েবসাইট থেকে Namemesh.

ডোমেইন নাম সাজেশন নেওয়ার জন্য WebsitePlanet টুলটি ব্যবহার করতে পারেন।

এবার ২ জিবি হতে ৩ জিবি হোস্টিং ক্রয় করুন, এর থেকে বেশি হোস্টিং ক্রয় করার দরকার নেই।

আমার ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা থেকে একটি কথা বলতে চাই তাহল, আমাদের দেশের কোন কোম্পানি থেকে ডোমেইন, হোস্টিং ক্রয় করার দরকার নেই। সম্ভব হলে ইন্টারন্যাশনাল কোন কোম্পানি থেকে ডোমেইন, হোস্টিং ক্রয় করলে ভালো হবে।

যেহেতু বাইরের কোম্পানি থেকে ডোমেইন, হোস্টং ক্রয় করার জন্য ডলার দরকার সেহেতু আপনি আমাদের সাথে যোগাযোগ করতে পারেন।

অনলাইন ব্যবসার আইডিয়া

ওয়েবসাইট ডিজাইন

বর্তমানে খুব অল্প টাকা খরচ করে ওয়ার্ডপ্রেস দিয়ে ভালো মানের ওয়েবসাইট তৈরি করা যায়। যে সকল কোম্পানি ওয়ার্ডপ্রেস ওয়েবসাইট ডিজাইন করে তাদের সাথে যোগাযোগ করে একটি সুন্দর ই-কমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করতে পারেন।

একটি মাধ্যমিক পর্যায়ের ই-কমার্স ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য ৮,০০০ হাজার থেকে ১০,০০০ হাজার টাকা পর্যন্ত খরচ হতে পারে।

আমাদের নিজেদের ওয়েবসাইট ডিজাইন কোম্পানি আছে। আপনি চাইলে আমাদের সাথে কন্ট্রাক করতে পারেন। আমাদের ওয়েবসাইটের নাম aonedigitalmarketing.com। আমরা এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এসইও, ওয়েবসাইট ডিজাইন, ডিজিটাল মার্কেটিং ইত্যাদি সেবা দিয়ে থাকি।

সফল ভাবে অনলাইনে ব্যবসা করার উপায়

ইনভেস্টমেন্ট

প্রথম অবস্থায় আপনার ইনভেস্টমেন্টের একটি হিসাব দিচ্ছি। ডোমেইন + হোস্টিং + ওয়েবসাইট = ১২,৩০০ টাকা।

দ্বিতীয় ধাপে খরচ হবে পণ্য ক্রয় করার ক্ষেত্রে। পণ্য ক্রয় করার জন্য মিনিমাম বাজেট রাখবেন ২০,০০০ থেকে ৩০,০০০ টাকা। ২০ থেকে ৩০ হাজার টাকা বেশি খরচ করবেন না পণ্য ক্রয় করার জন্য। পারলে এর থেকে কম টাকা খরচ করবেন কিন্তু কখনোই বেশি নয়।

তৃতীয় ধাপে খরচ হবে মার্কেটিং করার জন্য। আপনাকে মিনিমাম ডিজিটাল মার্কেটিং করতে হবে ৪ থেকে ৫ মাস। প্রতি মাসে খরচ হবে ২৫০০ হতে ৩০০০ টাকা।

আমি সর্বমোট টাকার হিসাব করলে দাঁড়াবে ৫৭,৩০০ টাকা।

অ্যাফিলিয়েট ব্লগ শুরু করার উপায়

ব্যবসার সমস্যা

এই ব্যবসার সমস্যা অনেক তবে প্রথম যে সমস্যা টা হবে সেটা হল বিক্রয়। আপনি যদি মনে করেন আজকে পণ্য ক্রয় করে অনলাইনে দিলে কালকে থেকে বিক্রয় শুরু হবে তা কিন্তু নয়।

দেখা যাবে যে, ব্যবসা শুরু ১ হতে ২ মাস পর প্রথম অর্ডার আসতে পারে। বোকার মত ব্যবসার ছেরে দিলে হবে না। কষ্ট করে লেগে থাকতে হবে, কারন এই ব্যবসা একবার প্রতিষ্টিত করতে পারলে প্রতি মাসে লক্ষ লক্ষ টাকা আয় করতে পারবেন।

মনে রাখবে, আপনার ব্যবসার পরিধি সমস্ত বাংলাদেশ। আপনার ব্যবসার কিন্তু বাড়ির পাশের দোকানের মত না, সময় লাগবে কিন্তু সফলতা আসবে।

আর একটি বিষয় মনে রাখবেন ভালো পণ্য এবং পণ্য ডেলিভারি অনলাইন ব্যবসার মূল মন্ত্র।

আপনার সেবার কোয়ালিটি যত বেশি ভালো হবে তত বেশি সফল হতে পারবেন। একটা সময় দেখবেন মানুষ আপনার ওয়েবসাইট নিয়ে ইউটিউবে ভিডিও তৈরি করবে, ব্লগ লিখবে।

জানি না, আপনাকে কত টুকু সহযোগিতা করতে পারলাম। তবে ভালো লাগবে আমার কোন কথা, আপনার কাজে আসলে।

ভালো থাকবেন।

বিস্তারিত আরও পড়ুর