আর্টিকেল লিখে আয় করবেন কি ভাবে এবং কন্টেন্ট লেখার কৌশল

বাংলায় আর্টিকেল লিখে আয় করা যায় এমন প্লার্টফম এখনও তৈরি হয়নি। যদিও দিন দিন বাংলা আর্টিকেল লেখার চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। আশা করা যায় এক হতে দুই বছরের মধ্যে বাংলা আর্টিকেল লেখার চাহিদা বৃদ্ধি পাবে।
তবে ইংরেজিতে আর্টিকেল লিখে আপনি প্রতিমাসে ভালো টাকা আয় করতে পারবেন।

বর্তমান মার্কেট প্লেস এ আর্টিকেল রাইটারের প্রচুর চাহিদা। কিন্তু যে সংখ্যক রাইটার দরকার, তার তুলনায় অনেক কম। আপনি ভালো ইংরেজি লিখতে পারলে একজন ভালো আর্টিকেল রাইটার হতে পারবেন।

আর্টিকেল রাইটিং কি?

যে কোন বিষয়ের উপর লিখত আকারে প্রকাশ করাকে আর্টিকেল বলে। একটা উদাহরন দেওয়া যাকঃ আপনি ফেসবুক মার্কেটিং খুব ভালো বুঝেন। আপনাকে ফেসবুক মার্কেটিং সম্পর্কে লিখতে বললে হাজার হাজার ওয়ার্ড লিখতে পারবেন। এবার ফেসবুক মার্কেটিং এর উপর একটি ১০০০ বা ১৫০০ ওয়ার্ড এর লেখা লিখলেন। এই লেখাটাই হল একটি আর্টিকেল।

খুব সহজ ভাষায় বললে, কোন কিছু বিষয় লেখা বা আলোচনা করাই হল আর্টিকেল রাইটিং।

ইন্সাট্রাগ্রাম থেকে অর্থ আয়ের উপায়

আর্টিকেল লেখার ধরন নির্বাচন করবেন যে ভাবে

আপনি যে বিষয় সব থেকে ভালো জানেন সেই বিষয় এ লেখার চেষ্টা করাবেন। অজানা বিষয় লেখা শুরু করলে আপনি ভালো লেখক হতে পারবেন না।

একটা উদাহরণ দেওয়া যাক
ধরুন আপনি একজন ভালো ইংরেজি শিক্ষক, তাহলে আপনার লেখার বিষয় বস্তু অবশ্যই হওয়া উচিত ইংরেজি। এখন আপনি যদি গনিত নিয়ে লেখা শুরু করেন তা আপনার জন্য কঠিন হয়ে যাবে।

আপনি চাইলে বিষয় বস্তুর বাইরে গিয়ে লিখতে পারবেন। তবে যে বিষয় সম্পর্কে লিখেন না কেন তার জন্য পড়ালেখা করাটা জরুরি। আপনি যত বেশি পড়বেন তত বেশি ভালো লিখতে পারবেন।

আপনি যে বিষয় সম্পর্কে লিখবেন সেই সম্পর্কিত ব্লগ, ম্যাগাজিন, বই, নিউজ, ইত্যাদি আপনার পড়া দরকার।

ফেসবুক থেকে টাকা আয়ের উপায়

আর্টিকেল লিখে আয় করবেন যে ভাবে

আর্টিকেল লিখে আয় করার জন্য ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট প্লেসে। সাধারনত দুই ভাবে আপনি কাজ পেতে পারেন এক সরাসরি ফ্রিল্যান্সিং মার্কেট প্লেস থেকে দুই সরাসরি আপনার পোর্টফলিও ওয়েবসাইট থেকে।

তবে আপনি যদি একজন প্রফেশনাল আর্টিকেল রাইটার হয়ে থাকেন তবে পোর্টফলিও থাকাটা জরুরি। আপনি যে কোনো একটি এজেন্সির মাধ্যমে আপনার একটি পোর্টফলিও তৈরি করে নিতে পারেন।

১. গোষ্ট রাইটার আর্টিকেল লিখে আয়

আপনি ভালো ভূতের গল্প লিখতে পারলে নিজেকে একজন গোষ্ট রাইটার হিসাবে প্রতিষ্টিত করতে পারবেন। বর্তমান মার্কেট প্লেস এ গোষ্ট রাইটারে প্রচুর চাহিদা আছে।

How to become a Professional Ghostwriter?

একজন প্রফেশনাল গোষ্ট রাইটার প্রতি মাসে $1000 হতে $1500 ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারবে। আপনি একজন প্রফেশনাল গোষ্ট রাইটার হওয়ার জন্য কাল্পনিক চিন্তা-ভাবনা করার সামর্থ থাকতে হবে।

ব্লগিং করে কি ভাবে আয় করবেন (বিস্তারিত)

২. কপি রাইটার

যে কোন পণ্য বিক্রয় এর জন্য কন্টেন্ট রাইটিং একটি বড় মাধ্যম। কন্টেন্ট লেখার মধ্যে যে কোন পণ্য প্রচার করে তা বিক্রয় করা হয়। এবং কন্টেন্ট একটি সহযোগি মাধ্যম যে কোন পণ্যের প্রচারের জন্য।

কন্টেন্ট লেখার পিছনে একটি বড় উদ্দেশ্য হল পণ্যের বিক্রয়, ব্রান্ডিং, সচেতনা বৃদ্ধি, এবং বিক্রয় বৃদ্ধি। আপনি চাইলে একজন ভালো কপি রাইটার হতে পারবেন।

বর্তমানে এক জন কপি রাইট ফ্রিল্যান্সার এর চাহিদা অনেক বেশি। আপনি একজন ভালো মানের কপি রাইটার হতে পারলে প্রতি মাসে $1000 ডলার হতে $1500 ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারবেন।

আপনি যদি কপি রাইটার হতে চান তাহলে আপনাকে প্রথমে প্রতিটি বিষয়ে ক্লিয়ার ধারনা থাকাটা জরুরি।

একটা উদাহরণ দিয়ে বিষয়টা বুঝানো যাকঃ

আপনি ভিডিও এডিটিং সফটওয়্যার এর উপর কপি রাইটিং করতে চান। এখন আপনাকে যা করতে হবে তা হল। সেই সফটওয়্যার এর উপর এ-টু জেড তথ্য থাকা টা জরুরি। আপনার সেই সফটওয়্যার এর বিষয়ে ক্লিয়ার ধারনা না থাকলে, ভালো কপি রাইট লিখতে পারবেন না।

ইউটিউব থেকে আয়ের বিভিন্ন উপায়

৩. পণ্যের বর্ণনা লেখার মাধ্যমে আয় করুন

প্রতিটি ই কর্মাস ওয়েব সাইট এর জন্য পণ্যের বর্ণনা লেখক জরুরি। প্রতি দিন লক্ষ লক্ষ পণ্যের বর্ণনা লেখক এর চাইদা ফ্রিল্যান্সিং ওয়েবসাইটে।

তবে আপনি যদি মনে করেন খুব সহজে পণ্যের বর্ণনা লেখা যায় তা কিন্তু একবারে ঠিক নয়। কারন একটি পণ্যের বর্ণনা লেখার জন্য, সেই পণ্যের বিষয় বিস্তারিত ধারনা থাকাটা জরুরি।

আপনি একজন প্রফেশনাল পণ্যের বর্ণনা লেখক হতে পারলে প্রতি মাসে $500 হতে $1000 ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। পণ্যের বর্ণনা লেখার জন্য যে সব বিষয় খেয়াল রাখতে হবে।

  • পণ্যের প্রাথমিক বর্ণনা
  • পণ্যের মান
  • উৎপাদিত পণ্যের উপকরণ
  • পণ্যের ব্যবহারকারীর রিভিও
  • পণ্যের ইতিহাস

বি.দ্রঃ যতটা সম্ভব পণ্যের বর্ণনার মাধ্যমে গ্রাহককে পণ্য ক্রয় এর জন্য আগ্রহী করে তুলতে হবে।

ওয়েবসাইট রিভিউ অনলাইন কাজ

৪. স্বাস্থ্য বিষয়ক লেখক

এই সময়ের জনপ্রিয় টপিক স্বাস্থ্য বিষয়ক লেখা। আপনি একজন স্বাস্থ্য বিষয়ক লেখক হয়ে থাকলে প্রতি মাসে 3000 হতে 4000 ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। এখান সমস্য হল একজন সাধারন লেখক স্বাস্থ্য বিষয় এর উপর লিখতে পারবে না। স্বাস্থ্য বিষয়ক লেখার জন্য ডাক্তার দরকার।

কিন্তু আপনি স্বাস্থ্য বিষয়ে লিখতে না পারলেও স্বাস্থ্য বিষয়ক টিপস বা এর সম্পর্কিত বিষয় গুলো নিয়ে লিখতে পারেন।

একটা উদাহরণ দেওয়া যাকঃ

আপনি একটি লেখা লিখলেন “তুলসি পাতার চা এর উপকারিতা” লেখাটি স্বাস্থ্য বিষয়ক টিপস। সুতরাং আপনি চাইলে এই ধরনের লেখা গুলো লিখতে পারবেন।

প্রফেশনাল ব্লগিং কোর্স

৫. হোটেল ব্যবসা বিষয়ক লেখক

দিন দিন হোটেল ব্যবসা বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে এর অনলাইন হোটেল বুকিং বৃদ্ধি পাচ্ছে। আপনি একজন প্রথম শ্রেণির ট্রাভেল ব্লগার হয়ে থাকলে হোটেল ব্যবসা দিয়ে আয় করতে পারবেন।

একটা উদাহরণ দেওয়া যাক ট্রাভেল ব্লগার নিয়ে বা ট্রাভেল আর্টিকেল লিখে আয় করার জন্য

আপনি একটি জায়গা থেকে ভ্রমন করে আসলেন এবং যে জায়গা থেকে ভ্রমন করেে এসে তার বিষয়ে বিস্তারিত একটি ব্লগ এ লিখলেন। জায়গার বর্ণনা, হোটেল, যাতায়াত, ইত্যাদি বিষয়।

এখন আমি একজন ভ্রমন পিপাষু মানুষ এখন আমি বেড়াতে যেতে চাই। আমি গুগল এ সার্চ দিয়ে আপনার লেখা ব্লগ পেলাম। এবং সেই ভাবে আমি হোটেল বুক থেকে শুরু করে সব কিছু আপনার ব্লগ দেওয়া দিক-নির্দেশনা মত করলাম।

আমি আপনার ব্লগ অনুযায়ী যে সব কিছু করলাম তার জন্য সেই হোটেল পে করবে।

বর্তমান সময়ের জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং কাজ

কপি রাইটার কেন প্রয়োজন হয়

  • টিভি এড
  • ইন্টারনেট এড
  • রেডিও এড
  • B2C পণ্য বিক্রয় এর জন্য  তথ্য সম্বলিত পেপার
  • B2B পণ্য বিক্রয় এর জন্য তথ্য সম্বলিত পেপার
  • সার্ভে ফরম পূরন এর জন্য লেখা
  • গুগল এড
  • ফেসবুক এড
  • টুইটার আপডেট এর জন্য
  • ফেসবুক পেজ আপডেট এর জন্য
  • ওয়েবসাইট কন্টেন্ট রাইটিং করার জন্য
  • সাইন আপ পেজ লেখার জন্য
  • Privacy Policy পেজ লেখার রাইটার
  • Customer Support বিশেষ বার্তা
  • প্রেস রিলিস

কন্টেন্ট রাইটার পোর্টফলিও

আপনি একজন প্রফেশনাল রাইটার হলে Portfolio থাকাটা জরুরি। পোর্টফলিও আপনি ‍দুই ভাবে তৈরি করতে পারেন নিজের ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে অথবা তৃতীয় কোন ওয়েবসাইট এর মাধ্যমে। নিজের ওয়েবসাইট তৈরি করতে না চাইলে নিচের দেওয়া ওয়েবসাইট গুলো দিয়ে করতে পারেন।

Journoportfolio

উপরে যে সাইন-আপ ফর্ম দেখতে পাচ্ছেন তা Journoportfolio ওয়েবসাইট এর। প্রয়োজনীয় তথ্য দিয়ে উপরের ফর্ম টি পূরণ করুন এবং সাইন-আপ পোর্টফলিও আপডেট করুন। Journoportfolio ওয়েবসাইট এ দুই ধরনের ভার্সন আছে এক পেইড এবং ফ্রি। পেইড ভার্সনে প্রতি মাসে পেমন্টে করতে হবে $5 থেকে $10।

Clippings

Clippings একটি পোর্টফলিও তৈরির সাধারন মানের ওয়েবসাইট। এই ওয়েবসাইটে অনেক সুবিধা আছে। যেমন, আপনার তৈরি করা পোর্টফলিও এর সাথে এক্সট্রা ডোমেইন যোগ করতে পারবেন।

এই ওয়েবসাইটে যে সব সুবিধা পাওয়া যাবেঃ

  • নিজের জীবনবৃত্তান্ত যোগ করতে পারবেন।
  • ইচ্ছা মত ওয়েবসাইটকে সাজাতে পারবেন।
  • আপনাকে অভিজ্ঞতা যোগ করার সুবিধা।
  • মোবাইল ফ্রেন্ডলি
  • ভিডিও যোগ করা
  • গুগল এনালাইটিক সুবিধা
  • ইমেই রিসিভ করতে পারবেন।
  • কাস্টম ডোমেইন নাম যোগ করা।

পোর্টফলিও তৈরি ওয়েবসাইট

ফেসবুক থেকে আয়ের বিভিন্ন মাধ্যম

কন্টেন্ট লেখার কিছু বেসিক কৌশল

আমি মনে করি একজন কন্টেন্ট রাইটারের নিজস্ব একটা স্টাইল আছে। একজনের লেখার সাথে অন্য জনের লেখার কোন মিল নেই। আপনি যত কৌশল অবলম্বন করেন না কেন শেষ পর্যন্ত আপনার স্টাইল আপনার পিছু ছাড়বে না।

যা হোক, আমি আমার কিছু ব্যক্তিগত অভিজ্ঞতা শেয়ার করছি আশা করি ভালো লাগবে।

  • লেখার বিষয়বস্তু নিয়ে ছোট নোট তৈরি করা
  • লেখার গঠন ঠিক করা
  • ছবি ভিডিও সংগ্রহ করা
  • বেসিক এসইও

লেখার বিষয়বস্তুঃ আপনি কোন কিছু নোট করে লেখা শুরু করলে ভুল হওয়ার সম্ভবনা কম থাকে। নোট বলতে আমি যা বোঝাতে যাচ্ছি, আপনি কি কি বিষয় লিখবেন? কি কি সোর্স যুক্ত করবেন? কত গুলো ইনফরমেশন যুক্ত করবেন? এক্সট্রা বিষয় যুক্ত করবেন কি কি? লেখার উদ্দেশ্য কি? ইত্যাদি।

লেখার গঠনঃ লেখার গঠন বিষয়ে আপনাকে অনেক গুরুত্ব দিতে হবে। লেখার গঠন সঠিক না হলে ওয়েবসাইট এর বাউন্স রেট বৃদ্ধি পায়। লেখার গঠন বলতে বোঝাতে চাচ্ছি, লেখা উপস্থাপনের কৌশল।

একটা উদাহরন দেওয়া যাকঃ রাতুল খুব ভালো PPT তৈরি করতে পারে যে কোন বিষয় কিন্তু ভালো উপস্থাপন করতে পারে না। এই কারনে রাতুলের সুন্দর PPT কোন দাম নেই।

রিয়ার PPT ভালো না কিন্তু খুব সুন্দর উপস্থাপন করতে পারে।

সুতরাং উপস্থাপন খুবেই গুরুত্বপূর্ণ বিষয় লেখার ক্ষেত্রে।

বায়োডাটা লিখে অনলাইন থেকে আয় করার উপায়

ছবি এবং ভিডিও তৈরিঃ কন্টেন্ট উপস্থাপনের জন্য যে সকল ছবি বা ভিডিও দরকার হবে তা আগে থেকেই প্রস্তুত করে রাখতে হবে। আপনি ছবি এবং ভিডিও আগে থেকে সংগ্রহ করে না রাখলে লেখার সময় সমস্যার সৃষ্টি হয়।

বেসিক এসইওঃ এসইও একটি কন্টেন্ট মার্কেটিং এর কাজ। ওয়েবসাইটে কন্টেন্ট লেখার জন্য বেসিক এসইও জানা থাকা ভালো। এসইও আপনার লেখাকে গুগল বা অন্য কোন সার্চ রেজাল্টে উপরের দিকে নিয়ে আসতে সহযোগিতা করে।

আপনার এসইও জানা না থাকলে Udemy থেকে কোর্স করে নিতে পারেন। অনলাইনে লেখার কাজ পাওয়ার জন্য এসইও আপনাকে সহযোগিতা করবে। কারন অনেক রায়ার তাদের কাজ দিয়ে থাকে যাদের এসইও জানা আছে।

বিস্তারিত আরও পড়ুর

error: Content is protected !!