ঘরে বসে অনলাইনে চাকরি 2021

Work from Home

হয়তো সংখ্যা বর্তমানে খুবেই কম কিন্তু সম্ভব, ঘরে বসে অনলাইনে চাকরি করা। হ্যা প্রতিটি সেক্টরে সম্ভব নয় বাড়ি থেকে জব করা। কিন্তু কিছু কিছু সেক্টর আছে যা আপনি বাড়িতে বসে করতে পারবেন।

আজকে আমরা সেই বিষয় গুলো নিয়ে আলোচনা করব যা ঘরে বসে করা সম্ভব। আশা করছি এই লেখাটি পড়ার পর আপনি বুঝতে পারবেন আপনি ঘরে বসে কিভাবে জব করতে পারবেন। এবং কোন কোন সেক্টর গুলো আপনাকে অনলাইনে চাকরি করার সুযোগ তৈরি করে দিচ্ছে।

ঘরে বসে অনলাইনে চাকরি

প্রথমে আমরা একটা নিষ্ট তৈরি করি এমন সকল জবের যা বাড়ি থেকে করা সম্ভব।

  • সোস্যাল মিডিয়া ম্যানেজার
  • ভার্চুয়াল সহকারি জব
  • ই কমার্স বিজনেজ ম্যানেজার
  • ওয়েবসাইট সিকিউরিটি অফিসার
  • ওয়েবসাইট মেইটেইন জব
  • গ্রাফিক্স ডিজাইনার

ফ্রিল্যান্সিং এবং অনলাইন চাকরির মধ্যে পার্থক্য

ফ্রিল্যান্সিং এবং অনলাইনে চাকরি দুইটি ভিন্ন বিষয়। ফ্রিল্যান্সিং পেশায় আপনার যত ক্ষন কাজ আছে তত ক্ষন আয় করতে পাবেন। কাজ না থাকলে আপনি আয় করতে পারবেন না।

অপর দিকে অনলাইন চাকরি এবং অফলাইনে চাকরি দুইটি প্রায় একই বিষয়। আপনার জন্য নিদিষ্ট সেলারি থাকবে যা আপনি মাস শেষে পেতে থাকবেন। এবং জব রিলেটেড অন্য সকল সুযোগ সুবিধা পাবেন।

অনলাইনে চাকরির দুইটি সুবিধা এক পৃথিবীর যে কোন কোম্পানিতে আপনি কাজ করতে পারবেন ‍দুই বাড়িতে বসে চাকরি করতে পারবেন।

কিভাবে নিজেকে অনলাইন চাকরির জন্য প্রস্তুত করবেন?

ইন্টারনেটে চাকরি পাওয়ার জন্য আপনাকে অনেক বেশি দক্ষ হতে হবে আপনার কাজে। দক্ষতা ছারা আপনি কোন ভাইবে অনলাইনে জব পাবেন না। অনলাইনে চাকরি পাওয়ার ক্ষেত্রে শিক্ষকতা যোগ্যতা তত বেশি বিবেচনা করা হয় না। আপনি আপনার কাজটি সঠিক ভাবে পালন করতে পারেন কি না সেটাই বড় বিষয়।

তার মানে বিষয়টি দাঁড়ালো আপনার কাজের অভিজ্ঞতা থাকলে অনলাইনে চাকরি পাওয়া সম্ভব। নিজের একটি পোর্টফলিও বা আপনি যে সাভির্স প্রদান করেন তার উপর একটি ওয়েবসাইট থাকতে হবে।

অনলাইনে জব পাওয়ার জন্য এই সাভির্স ওয়েবসাইট বা পোর্টফলিও আপনাকে অনেক সহযোগিতা করবে। বলতে পারেন এই ওয়েবসাইটি আপনাকে জব পেতে সহযোগিতা করবে।

এখানে একটি বড় সমস্যা হল আমরা তৃতীয় কোন মাধ্যমে আমাদের পোর্টফলিও তৈরি করে ক্লাইন্টকে প্রদর্শন করি। এটা করা যাবে না। একটি পোর্টফলিও বা সাভির্স রিলেটেড ওয়েবসাইট ওপেন করতে কত টাকা লাগেব বলুন। একটি সাভির্স ওয়েবসাইট ওপেন করার জন্য অতিরিক্ত ৬০০০ থেকে ৭০০০ হাজার টাকা খরচ হবে। এর বেশি কখনো টাকা লাগার কথা নয়।

একটি ফেসবুক পেজ থাকলে ভালো হয়। কারন এই ফেসবুক পেজে আপনি আপনার অভিজ্ঞতা শেয়ার করার মাধ্যমে ফলোয়ার বা জনপ্রিয়তা বাড়াতে পারবেন। এর জন্য আপনার চাকরি পেতে সুবিধা হবে।

আপনি যে কাজেই জানেন না কেন তার উপর বিভিন্ন ধরনের শিক্ষামূলক বা অভিজ্ঞতা শেয়ার করুন। এতে করে আপনার জব পাওয়ার সম্ভবনা বেড়ে যাবে।

সোস্যাল মিডিয়া ম্যানেজার জব

আপনি সোস্যাল মিডিয়া ম্যানেজার জবটি কিভাবে প্রোভাইড করবেন তার উপর একটি সাভির্স বা পোর্টফলিও তৈরি করতে পারেন অনলাইনে। আপনাকে অনলাইনে কেউ খুজে পেলে সেখান থেকে জবের অফার পেতে পারেন।

তাছার একটি সাভির্স পেজ থাকলে বিভিন্ন ধররেন ক্লাইন্টের কাজ করে আয় করতে পারবেন।

সোস্যাল মিডিয়া ম্যানেজার জব হল কোন ব্যক্তি বা প্রতিষ্টানের সোস্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম গুলো ম্যানেজ করা। যেমন, প্রতিনিয়ত পোষ্ট করা, আপডোট প্রদান করা, কস্টমার এনগেজমেন্ট বৃদ্ধি করা, ইত্যাদি বিষয় গুলো আছে, যা আপনি বাড়িতে বসে করতে পারবেন, ইন্টারনেট সংযোগের মাধ্যমে।

ভার্চুয়াল সহকারি জব

সাধারনত ডাটা এনালাইসিস কোম্পানি গুলো ভার্চুয়াল সহকারি জব অফার করে। ভার্চুয়াল সহকারি বিভিন্ন ধরনের হয়ে থাকে, এটা নিদিষ্ট কোন পার্থক্য নেই।

যেমন আপনি ইন্টারন্টে থেকে খুব সহজে ডাটা কালেক্ট করতে পারেন। আমার একটি লিড জেনারেড করার কোম্পানি আছে আমি আপনাকে নিয়োগ দিলাম ডাটা সংগ্রহকরী সহকারি হিসাবে।

আবার আমি খুবেই ব্যস্ত মানুষ অফার লেটার, ক্লাইন্ট কন্ট্রাক, ফিড ব্যাক, ইত্যাদি বিষয় গুলো দেখার সময় আমার নেই। আমি একজন ভার্চুয়াল সহকারি নিয়োগ করাল যে আমার ইমেইল পড়বে, গুরুত্বপূর্ণ বিষয় গুলো আমাকে নোটিশ করাবে, কিছু মেইল সেন্ড করবে, শর্টলিষ্ট তৈরি করবে ইত্যাদি বিষয় নিয়ে কাজ করবে।

আপনি ভার্চুয়াল সহকারি জব পেতে চাইলে নিদিষ্ট কোন কাজ শিখে একটি ওয়েবসাইট তৈরি করে তা প্রভাইড করা শুরু করুন। দেখুন সকল ভায়ার ফ্রিল্যান্সার হায়ার করে না। এবং যারা ব্যস্ত তাদের ফ্রিল্যান্সির হায়ার করার সময় নেই। এই সকল ব্যক্তি সাধারনত জব পোর্ফফলিও বা সাভির্স পেজ খুজে বেড়ায়।

অনলাইনে ই কমার্স বিজনেজ ম্যানেজার জব

সাধারনত e-commerce প্লার্টফর্ম গুলোতে নতুন নতুন পণ্য ইনপুট করতে হয়। এবং কোন পণ্যের স্টোক আছে ইত্যাদি বিষয় গুলো চেক করতে হয়। যদিও এই বিষয় গুলো সম্পূর্ন ভাবে সফটওয়্যার মেইনটেইন করে থাকে। তারপরেও কিছু কাজ আছে যা মানুষকে করতে হয়।

যেমন নতুন প্রডাক্ট ইনপুট করা এবং বিস্তারিত লেখা। কাস্টার রিভিউ এর জবার দেওয়া, অর্ডার প্রসেস করা, ইত্যাদি কাজ গুলো অনলাইনে করা সম্ভব।

অনলাইন ওয়েবসাইট সিকিউরিটি অফিসার

সকল ধরনের সাভির্স রিলেটেড কোম্পানি গুলোর ওয়েবসাইটি প্রান। এই ওয়েবসাইটের মাধ্যমে এর অর্ডার পায়, ক্লাইন্ট পায় বলতে গেলে ক্লাইন্টদের সাথে যোগাযোগের একটি মাদার মাধ্যম হচ্ছে এই ওয়েবসাইট গুলো।

এখন কোন কারনে এই ওয়েবসাইট কেউ হ্যাক করলে তাদের অবস্থা কি হবে। এই জন্য প্রতিটি বড় বা মাঝারি ধরনের প্রতিস্টান গুলো তাদের ওয়েবসাইট সিকিউরিটি অফিসার হায়ার করে থাকে।

একজন সিকিউরিটি অফিসার ওয়েবসাইটের CCTV ক্যামেরা বলতে পারেন। যে কোন ধরনের অ্যাটাক থেকে ওয়েবসাইটকে সেভ করাই এদের কাজ।

ঘরে বসে আয় করার সহজ উপায়

অনলাইনে আয় ২০২১

ওয়েবসাইট মেইনটেইন অনলাইন জব

ধরুন আপনি ১০টি ব্লগ সাইট আছে। এবং প্রতিটি ব্লগ সাইট ভিন্ন ভিন্ন ক্যাটাগরির। ব্লগ সাইট গুলোর ব্যাবসায়িক আইডিয়া ভিন্ন ভিন্ন। কোনটা লিড জেনারেট, অ্যাফিলিয়েট, এডসন্স অথবা অন্য কোন ক্যাটাগরি।

এখন আপনি বলুন প্রতিটি ব্লগ সাইট আপনার একার পক্ষে মেইনটেইন করা সম্ভব কি! সুতরাং আপনি যদি জেনে থাকেন কিভাবে প্লাগিন আপডেট করতে হয়, কিভাবে ফাইল ব্যাকাপ রাখতে হয়? অথবা কিভাবে অরজিনাল অথবা ক্লাইন্ট মেইল খুজে উত্তর দিতে হয় তাহলে আপনি ওয়েবসাইট মেইনটেইন করার চাকরি পাবেন।

ওয়েবসাইট মেইনটেইন জব করার জন্য আপনাকে অফিসে যেতে হবে। যে কোন ধরনের ওয়েবসাইট মেইনটেইন জব বাসা থেকে করা যায়।

অবশ্য আরও অনেক বিষয় আছে যা আপনাকে জানতে হবে ওয়েবসাইট মেইনটেইন জব পাওয়ার জন্য। যেমন গুগল এনালাইটিক, গুগল সার্চ কনসাল,ইত্যাদি।

গ্রাফিক্স ডিজাইন জব

সাধারনত গ্রাফিক্স ডিজাইনার আউটসোর্সিং করা হয়। তবে এমন অনেক কোম্পানি আছে যারা গ্রাফিক্স ডিজাইনারদের জব প্রদান করে।

যাদের ই-কমার্স ব্যাবসা প্রতিষ্টান আছে তারা সাধারনত গ্রাফিক্স ডিজাইনার নিয়োগ দিয়ে থাকে। বিশেষ করে যাদের Clipping Path উপর যাদের অভিজ্ঞতা আছে।

এখন প্রশ্ন একটাই সব কিছু ঠিক আছে কিন্তু চাকরি পাব কিভাবে?

এই প্রশ্নের উত্তরে আমি বলব কাজ শেখা শুরু করুন আপনাকে চাকরি খুজতে হবে না, চাকরি আপনাকে খুঁজবে। এর জন্য আপনাকে অবশ্যই একটি সাভির্স প্রভাইড করার ওয়েবসাইট থাকতে হবে।

আপনি যে কাজ জানেন তা মানুষকে জানাতে হবে। মানুষ যখন জানতে পারবেন আপনি কাজ জানেন তখন মানুষ আপনাকে হায়ার করবে অথবা চাকরি দিবে।

মানুষ যদি না জানে তাহলে কিভাবে আপনাকে মানুষ জব দিবে। আর একটি বিষয় আপনি কাজ জানেন এটা প্রমান করার জন্য হলেও ওয়েবসাইট থাকা দরকার।

আপানর সিভি তে যখন উল্লখ্য করা থাকবে যে এটা আপনার পোর্টফলিও ওয়েবসাইট তখন অন্য দশজন ক্যান্ডিটেড থেকে আপনার মূল্যায়ন যে ভিন্ন হবে, সেটাই স্বাভাবিক।

ব্লগিং করে আয় করার বিস্তারিত আলোচনা

শেষ কথা

আমি যে সকল জব বা চাকরির কথা উল্লখ্য করেছি এর বাইরেও হাজার হাজার কাজ আছে যা অনলাইনে বা বাসায় বসে করা সম্ভব। সুতরাং নিজের দক্ষতার উন্নায়ন করুন আপনার মূল্যায়ন করার জন্য মানুষের অভাব হবে না।

কাজ পাবার আশায় কাজ শিখবেন না। ভালোবেসে কাজ শিখুন দেখবেন আপনিও একদিন সফল হবেন।

কিভাবে ফ্রিল্যান্সিং শিখবো

ফ্রিল্যান্সিং কাজ কি? বর্তমানে জনপ্রিয় ফ্রিল্যান্সিং কাজ সমূহ

বিস্তারিত আরও পড়ুর