ব্লগ থেকে আয় করুন কাস্টমার রেফার করে – ব্লগ আইডিয়া

ব্লগ থেকে আয় করার ভালো মাধ্যম হচ্ছে কাস্টমার রেফার করা। শুধু আপনাকে জানতে কি ভাবে শুরু করবেন। সঠিক ভাবে শুরু করতে পারলে, কাস্টমার রেফার ব্লগ থেকে একটা ভালো অংকের অর্থ আয় করতে পারবেন।

কাস্টমার রেফার করে ব্লগ থেকে আয় করার জন্য যে ব্লগ তৈরি করা হয় এবং এ্যাডসেন্সের জন্য ব্লগ তৈরি করা তা সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যে। আপনি চাইলে কাস্টমার রেফার ব্লগ থেকে এ্যাডসেন্স আয় করতে পারবেন কিন্তু এ্যাডসেন্স ব্লগ থেকে রেফার আয় করা কষ্টকর।

আজকের এই আলোচনায় আমরা জানতে চেষ্টা করব কী ভাবে ব্লগে কাস্টমার রেফার করে আয় করা যায়।

কাস্টমার রেফার ব্লগ কী?

আপনি যখন কোন বিশেষ উদ্দেশ নিয়ে ব্লগ তৈরি করবেন। একটা উদাহরন দেওয়া যাক, আমি রবি, আমার একটি ট্যাটু সেন্টার আছে কিন্তু মানুষ তেমন বেশি একটা জানে না। এখন আমি একজন ব্লগারের সাথে যোগাযোগ করলাম যে ট্যাটু নিয়ে ব্লগ লিখে।

এখন সেই ট্যাটু ব্লগারের সাথে আমি কন্ট্রাক্ট করলাম যে, আপনার ব্লগ বা আপনার মাধ্যমে কোন কাস্টমার আমার দোকানে আসলে আমি আপনাকে কাস্টমার প্রতি কমিশন দিব।

ট্যাটু ব্লগার এখন একটি ব্যানার বা ফর্ম তৈরি করে ব্লগে প্রকাশ করল। এতে করে যে সকল মানুষ ট্যাটু করাতে চায় তাদের কে সেই ট্যাটু সেন্টারে রেফার করে, আয় করতে পারবে।

অনলাইনে পণ্য বিক্রয় করে আয় করার উপায়

কাস্টমার রেফার ব্লগ থেকে আয় করার জন্য আপনাকে যা যা করতে হবে

  • আপনি কোন ধরনের কাস্টমার রেফার করতে চান তার একটি লিষ্ট তৈরি করতে হবে।
  • ডোমেইন না রেফার করা কাস্টমারের বিষয় এর উপর হলে ভালো হয়, না হলেও কোন সমস্যা নেই।
  • ব্লগের লেখার ধরন
  • কাস্টমার রেফার

কাস্টমার রেফার লিষ্ট করুন ব্লগ থেকে আয় করার জন্য

কাস্টমার রেফার ব্লগ থেকে আয় করার জন্য ভালো মানের বিষয় বাছাই করাটা জরুরি। যেমন আমি এমন একটি বিষয়কে লক্ষ করে লেখা শুরু করলে যেখানে কাস্টমার পাওয়াটা কঠিন।

সুতরা এমন সব বিষয় কাস্টমার রেফার করতে হবে যাতে আয় করা যায়।

আমি একটি ব্লগ শুরু করলাম এবং ব্লগের উদ্দশ্য হল যারা ভালো মানের উকিল খুঁজছে তাদেরকে লক্ষ করে। আমার ব্লগে যদি প্রতিদিন ১০০ মানুষ আসে উকিল খোজার উদ্দেশ্য নিয়ে তবে খুব সহজে সেই মানুষ গুলোকে আমি কোন উকিল কে রেফার করতে পারব এবং আয় করতে পারব।

পরামর্শ দিয়ে অনলাইনে আয় করুন

যে সব বিষয় নিয়ে ব্লগ তৈরি করে অনলাইন থেকে আয় করতে পারেন

আরগানিক বিউটি প্রডাক্টঃ অনেক মানুষ আছে যারা আরগানিক বিউটি প্রডাক্ট ক্রয় করতে চায়। কিন্তু খুব সহজে আরগানিক বিউটি প্রডাক্ট পাওয়াটা সহজ নয়। এবার আপনি যদি একটি আরগানিক বিউটি প্রডাক্ট বিষয় ব্লগ তৈরি করেন এবং যে ব্যাক্তি আরগানিক প্রডাক্ট সেল করে তাকে রেফার করেন তবে আয় করতে পারবেন।

বিউটি পার্লারে কাস্টমার রেফারঃ বিউটি টিপসের উপর অনেক বিউটি ব্লগ আছে। আপনি বিউটি রিলেটেড একটি ব্লগ সাইট ওপেন করে লোকাল বিউটি পার্লারে কাস্টমার রেফার করতে পারেন।

ওয়েডিং ব্লগঃ বর্তমান সময়ে ছোট বড় অনেক ওয়েডিং ওয়েবসাইট আছে। আপনি যদি একটি ব্লগ সাইট ওপেন করেন এবং বিভিন্ন ওয়েডিং ওয়েবসাইটের রিভিউ করেন তাহলে অনেক কাস্টমার পাবেন যাদের রেফার করে আয় করতে পারবেন। এর জন্য আপনাকে অবশ্যই ওয়েডিং কোম্পানির সাথে যোগাযোগ থাকতে হবে।

ফ্যাশান ব্লগঃ বাংলায় খুব উন্নত মানের ফ্যাশান ব্লগ এখনও দেখি নাই। আপনি খুব সন্দর একটি ফ্যাশান ব্লগ তৈরি করতে পারেন। ফ্যাশান হাউজে আপনার ব্লগে আসা কাস্টমারকে রেফার করে আয় করতে পারবেন।

ট্রাভেল ব্লগঃ ট্রাভেল ব্লগিং ব্যয় বহুল কিন্তু আয় ও অনেক। আপনি একটি ট্রাভেল ব্লগিং দিয়ে প্রতিমাসে লক্ষ টাকা পর্যন্ত আয় করতে পারবেন। এক জায়গায় ঘুরে এসে সেই এলাকায় নিয়ে লিখতে পারেন। লেখার বিষয়বস্তু হবে হোটেল, রেষ্টুরেন্টে, ট্রাভেল করার উপায়, ইত্যাদি।

ডিজিটাল সার্ভিস রিলেটেড ব্লগঃ আপনি যদি একটি ডিজিটাল সার্ভিস রিলেটেড ব্লগ তৈরি করে প্রতিষ্টিত করতে পারেন তাহলে প্রতি মাসে হাজার হাজার টাকা আয় করতে পারবেন।

অ্যাপ রিভিউ করে অনলাইন থেকে ইনকাম করার উপায়

এজেন্সি রিলেটেড ব্লগ

  • এসইও রিলেটেড ব্লগ
  • সোশ্যাল মিডিয়া এড এজেন্সি ব্লগ
  • ওয়েবসাইট ডিজাইন এন্ড ডেভলোপমেন্ট ব্লগ
  • সোশ্যাল মিডিয়া একাউন্ট ম্যানেজমেন্ট সার্ভিস

হাজার হাজার ডিজিটাল এজেন্সি আছে যাদের কাস্টমার দিলে আপনাকে কমিশন প্রদান করবে।

আপনি যে কোন ডিজিটাল এজেন্সির সাথে কথা বলে চুক্তি করতে পারেন। এজেন্সি গুলো ক্লাইন্ট প্রতি ১০০ ডলার হতে ২০০ ডলার পর্যন্ত পেমেন্ট করবে।

ক্লাইন্ট প্রদান করে দুই ধরনের আয় পেতে পারেন। প্রথমত প্রতি ক্লাইন্টের জন্য ১০ হতে ২০ ডলার। শর্ত হল কোম্পানির সাথে সেই ক্লাইন্ট কাজ করলেও আপনি ১০ হতে ২০ ডলারের বেশি পাবেন না।

দুই, এই ক্ষেত্রে ক্লাইন্টের সাথে কোম্পানির চুক্তি হলে আপনি মোট ব্যবসার ১০ পারসেন্ট হতে ১৫ পারসেন্ট পাবেন।

ইন্সটাগ্রাম থেকে টাকা আয়ের কৌশল

ডোমেইন নাম বাছাই

আপনি কি বিষয় নিয়ে ব্লগ লিখবেন বলে চিন্তা করেছেন সেই অনুযায়ি ব্লগের নাম নির্বাচন করতে হবে।

ব্লগের নাম নির্বাচন করার জন্য যে ভাবে চিন্তা করতে পারেন, এক বিষয় ভিত্তিক ব্লগের নাম যেমন আপনি এসইও নিয়ে ব্লগ করবেন সেই ক্ষেত্রে আপনার ব্লগের নাম হতে পারে SEO Agency ডট কম।

পরামর্শক হয়ে অনলাইন থেকে অর্থ আয়ের উপায়

ব্লগ লেখার ধরন

সব ধরনের ব্লগ একই স্টাইলে লিখতে পারবেন না। কিছু কিছু ব্লগ এর ক্ষেত্রে ভিডিও, অডিও, ইনফোগ্রাফিক্স কন্টেন্ট থাকাটা জরুরি।

একটা উদাহরন দেওয়া যাকঃ ধরুন আপনি ট্রাভেলিং নিয়ে ব্লগ লিখবেন সেই ক্ষেত্রে ব্লগের মধ্যে লেখার থেকে রেষ্টুরেন্টের খাবার মূল্য, হোটেল ভাড়া, ট্রাভেল খরচ ইত্যাদি উল্লেখ থাকাটা জরুরি। এবং ট্রাভেল ব্লগে অবশ্যই যেন ভিডিও থাকে।

অনলাইন কোর্স তৈরি করে বিক্রয় করার উপায়

শেষ কথা

ব্লগের মাধ্যমে অন্যের ব্রান্ড অথবা সার্ভিস কে রেফার করে আয় করতে চাইলে অবশ্যই আপনাকে প্রফেশনাল ব্লগার হতে হবে। এবং ব্লগের জন্য শুরুতে ইনভেস্ট করতে হবে, যদি সফল হতে চান।

আর যদি গুগল এ্যাডসন্স এর জন্য ব্লগ তৈরি করেন তবে খরচটা একটু কম হবে। তারপরেও এ্যাডসন্স ব্লগের জন্য খরচ করতে হবে।

বিস্তারিত আরও পড়ুর

error: Content is protected !!