ছাত্রদের জন্য অনলাইন থেকে আয় করার উপায়

ছাত্রদের জন্য অনলাইন থেকে আয় করার উপায়। একজন ছাত্র হয়ে অনলাইন থেকে আয় করতে চাওয়া বা আয় শুরুর চেষ্টা করাটা ভালো সিদ্ধান্ত। তবে কী ভাবে শুরু করবেন সেটা সম্পূর্ণ ভাবে নির্ভর করবে আপনার উপর।

সাধারনত বাইরের দেশে একটি ছেলে হাই স্কুল থেকে বাড়ির বাইরে থাকে এবং নিজের টাকায় চলার চেষ্টা করে। বেশির ভাগে ক্ষেত্রে ছাত্ররা নিজেই নিজের খরচ জোগায়।

বাংলাদেশের প্রেক্ষাপটে একজন ছাত্র প্রতি মাসে ৬,০০০ হতে ১০,০০০ হাজার টাকা পর্যন্ত আয় করাটা যথেস্ট বলে আমার মনে হয়।

আউটসোসিং শুরু করার গাইডলাইন

বি.দ্রঃ

আপনার বয়স ১৮ বছরের নিচে হলে এই লেখার বিষয়বস্তু অনুসরন করার দরকার নেই। কারন ১৮ বছরের আগে আয় করার চিন্তা ভাবনা করা উচিত নয়।

এই লেখাটি কোন ধরনের ছাত্রদের জন্য

আপনি আজ কালের মধ্যে অনলাইন থেকে আয় করতে চাইলে এই লেখাটি আপনার জন্য নয়। অনলাইন থেকে আয় করার জন্য নিজেকে প্রস্তুস করতে হবে। যেহেতু আপনি একজন ছাত্র সেহেতু পড়ালেখার পশাপাশি আপনাকে অনলাইনে সময় দিতে হবে।

মিনিমাম ৬ হতে ৭ মাস সময় নিয়ে ছাত্রদের অনলাইন থেকে আয় করার চিন্তা করা উচিত। এবং আপনাকে এমন কাজ শিখতে হবে যা ভবিষ্যৎ চাকরির ক্ষেত্রে অগ্রাধিকার সৃষ্টি করে।

কোনটি ভালো, মোবাইল অ্যাপ দিয়ে আয় অথবা ফ্রিল্যান্সিং

আমি ছাত্র হয়ে কোন ধরনের কাজ শিখতে পারি

আমি ব্যক্তিগত ভাবে ছাত্রদের সফটওয়্যার রিলেটেড কাজ শেখার জন্য উৎসাহিত করে থাকি। কারন সফটওয়্যার রিলেডেট কাজ গুলো অতিরিক্ত চাপ ছাড়াই ছাত্ররা করতে পারবে।

ছাত্রদের জন্য সফটওয়্যার রিলেডেট কাজের লিষ্ট

  • ভিডিও এডিটিং
  • ফটোশপ
  • থ্রি ডি অ্যানিমেশন
  • গ্রাফিক্স ডিজাইন
  • মাইক্রোসফট

ভিডিও এডিটিংঃ একজন ছাত্র হয়ে অনলাইন থেকে আয় করার জন্য ভিডিও এডিটিং উপযুক্ত একটি উপায়। এই কাজ শেখার জন্য ৩ হতে ৪ মাস সময় লাগবে। কাজ শেখার জন্য Udemy উপযুক্ত প্লাটফর্ম হতে পারে। ভিডিও এডিটিং করার মাধ্যমে ফ্রিল্যান্সিং প্লাটফর্ম থেকে প্রতি মাসে ১০০ হতে ২০০ ডলার সহজে আয় করতে পারবেন।

ফটোশপঃ প্রতি দিন গড়ে কয়েক মিলিয়ন ফটো কাজ করতে হয়। ফটোশপ কাজ সঠিক ভাবে শিখতে পারলে প্রতিদিন ১০ হতে ২০ ডলার সহজে আয় করতে পারবেন। শুধু আপনাকে সঠিক ভাবে কাজটি শিখতে হবে। আপনি একজন ছাত্র হয়ে থাকলে ফটোশপ কাজটা শিখে নিতে পারেন।

থ্রি ডি অ্যানিমেশনঃ এই কাজটি তুলনা মূলক ভাবে যেমন কঠিন তেমনি ভাবে এই কাজের চাহিদা প্রচুর। যদিও কাজটি শেখার জন্য ৬ হতে ৭ মাস সময় দিতে হয়। কিন্তু ভবিষ্যৎ কথা চিন্তা করলে এই কাজের মূল্য অনেক। এই কাজ শেখার মধ্যে প্রতি মাসে ১০০০ হতে ১৫০০০ ডলার পর্যন্ত আয় করতে পারবেন।

গ্রাফিক্স ডিজাইনঃ গ্রাফিক্স ডিজাইনের অনেক বিষয় আছে। আপনি কোন বিষয় গ্রাফিক্স ডিজাইন শিখবেন টা আপনাকে নির্বাচন করতে হবে। ছাত্র হয়ে গ্রাফিক্স ডিজাইন শেখাটা আপনার জন্য সহজ হবে। একজন গ্রাফিক্স ডিজাইনের প্রতি মাসে ১০০ হতে ২০০ ডলার আয় করে।

ফ্রি এবং পেইড অনলাইন ফ্রিল্যান্সিং কোর্স

মাইক্রোসফটঃ Online Assistant হয়ে কাজ করতে চাইলে মাইক্রোসফট ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ার পয়েন্ট ইত্যাদি কাজ জানতে হবে। ছাত্র হয়ে অনলাইন এ্যাসিসটেন্ট কাজ করে প্রতি মাসে ২০০ হতে ২৪০ ডলার আয় করতে পারবেন।

ছাত্রঅবস্থায় ফ্রিল্যান্সিং

আমি ব্যক্তিগত ভাবে একজন ছাত্রের ফ্রিল্যান্সিং করাটাকে সাপোর্ট করি না। তার পরেও আপনি চাইলে কিছু কিছু কাজ আছে যা করতে পারেন। ফ্রিল্যান্সিং করার জন্য এমন কাজ নির্বাচন করতে হবে যা আপনার পড়ালেখার ক্ষেত্রে সহযোগিতা করবে।

কন্টেন্ট রাইটারঃ আপনি আর্টিকেল রাইটিংকে পেশা হিসাবে নিতে পারেন। কারন কন্টেন্ট রাইটিং একটি সৃজনশীল পেশা। একই সাথে বিভিন্ন বিষয়ে আপনার ধারনা বাড়বে। যা পরর্বতীতে আপনার অভিজ্ঞতা বৃদ্ধি করা সহ, বিভিন্ন ক্ষেত্রে কাজে দিবে।

ভিডিও এডিটিংঃ আর্টিকেল রাইটিং যেমন একটি সৃজনশীল পেশা তেমনি ভিডিও এডিটিং একটি সৃজনশীল পেশা। কিছু ওপেন সোর্স সফটওয়ার পাবেন ভিডিও এডিটিং করার জন্য।

ডাটা কালেক্টরঃ গবেষনার জন্য প্রচুর ডাটার দরকার হয়। ডাটা ছারা কোন রিসার্স কাজ করা সম্ভব নয়। আপনি একজন ছাত্র হয়ে খুব সহজে রিসার্স কাজের ডাটা সংগ্রহের কাজ করতে পারেন। এবং পরর্বতীতে রিসার্স কাজের ডাটা আপনার পড়ালেখার কাজে লাগবে।

উপরের দেওয়া কাজ গুলো শেখার জন্য Udemy উপযুক্ত প্লাটফর্ম হতে পারে আপনার জন্য।

আর্টিকেল থেকে ভিডিও তৈরি করার অনলাইন কাজ

ছাত্রঅবস্থায় অনলাইন থেকে আয় করার জন্য নিচের দেওয়া ভিডিও টি দেখতে পারেন

বিস্তারিত আরও পড়ুর